ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন করোনায় আক্রান্ত

প্রকাশিত: ৭:৩৮ অপরাহ্ণ, জুন ১৯, ২০২০

ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন করোনায় আক্রান্ত

হারানো বিজ্ঞপ্তি, নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, আইনগত বিজ্ঞপ্তি, নিলাম বিজ্ঞপ্তি, এফিডেভিট, শুভেচ্ছা অভিনন্দন সহ আপনার প্রতিষ্ঠানের যেকোন বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন, প্রচারে প্রসার প্রচারের জন্য আমরা, যোগাযোগের ঠিকানাঃ- সৈয়দ সাইফুল ইসলাম নাহেদ মোবাইলঃ ০১৭১২-০৪৫৩৯১

সিলেটের চাকরির খবর ডেস্ক:- ফরিদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও এলজিআরডি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি সুস্থ আছেন এবং ঢাকার বাসায় অবস্থান করছেন।

শুক্রবার (১৯ জুন) দুপুরে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক জাহিদ বেপারী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ‘বৃহস্পতিবার রাতে তার করোনা আক্রান্তের খবর পেয়েছি।’ পরে ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘তিন-চার দিন আগে পরীক্ষা করিয়েছি। বৃহস্পতিবার রিপোর্ট পেয়েছি। রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তবে আমার তেমন কোনো উপসর্গ ছিল না। জ্বর-কাশি বা অন্য কোনো উপসর্গও নেই এখনো। আসলে পরীক্ষা না করালে বুঝতেই পারতাম না যে আমিও করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘অন্যদের পরামর্শে করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলাম। রেজাল্ট পজিটিভ এলেও অবশ্য মানসিকভাবে ঠিক আছি। বাসায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চিকিৎসা নিচ্ছি।’

মোশাররফ হোসেনের মেয়ের জামাই ও সিরাজগঞ্জ-২ আসনের এমপি ডা. হাবিবে মিল্লাত বলেন, ‘এমনিতেই পরিবারের সবার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার রিপোর্ট পেয়েছি। তার (মোশারফ হোসেন) পজিটিভ এসেছে। কোনও ধরনের উপসর্গ নেই। সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন। পরিবারে আর কারও পজিটিভ আসেনি।’

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন ২০০৯ সাল থেকে টানা দুই মেয়াদে সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ তিনি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন। ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন আত্মীয়তার সূত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিয়াই হন। প্রধানমন্ত্রীর একমাত্র মেয়ে সায়মা হোসেন পুতুলকে খন্দকার মোশারফের ছেলে মাসরুর হোসেনের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছেন।

সংসদের চলতি বাজেট অধিবেশনে অংশ নিয়েছেন এমন দু’জন সংসদ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যদিও ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ এ অধিবেশনে ছিলেন না।

ইঞ্জিনিয়ার মোশররফকে নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত মোট ১৪ জন সংসদ সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মন্ত্রিপরিষদের আক্রান্ত চার সদস্যের মধ্যে তিনজন সংসদ সদস্য ও একজন টেকনোক্র্যাট কোটায়। এর বাইরে সংসদ সচিবালয়ের মোট ৯১ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন।

জাতীয় সংসদে মন্ত্রিপরিষদের যে চার জন সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন তারা হলেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী গাজীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম মোজাম্মেল হক, বাণিজ্যমন্ত্রী রংপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য টিপু মুনশি, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বান্দরবানের এমপি বীর বাহাদুর উশৈসিং ও টেকনোক্র্যাট কোটায় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ।

প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ ১৩ই জুন মারা গেছেন। এছাড়া সিরাজগঞ্জ-১ আসনের এমপি ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমও মারা যাবার আগে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়েছিলেন।

আক্রান্ত অন্য সংসদ সদস্যরা হলেন, নওগাঁ-২ আসনের শহীদুজ্জামান সরকার, চট্টগ্রাম-৬ আসনের এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, যশোর-৪ আসনের রণজিৎ কুমার রায়, জামালপুর-২ আসনের ফরিদুল হক খান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আসনের এবাদুল করিম, চট্টগ্রাম-৮ আসনের মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম-১৬ আসনের মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান ও মৌলভীবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ। গণফোরামের মোকাব্বির খান ছাড়া আক্রান্ত সবাই আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি।

বাজেট অধিবেশনকে সামনে রেখেই জুন মাসের দুই তারিখ থেকে সংসদের বিভিন্ন বিভাগে কর্মরত ৯৫৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর নমুনা পরীক্ষা করা হয়। সংসদ সচিবালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নমুনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে। জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের মেডিকেল শাখার একজন চিকিৎসক বলেছেন, ১৬ জুন পর্যন্ত মোট ৯১ জন আক্রান্ত হয়েছেন।

সিলেটের চাকরির খবর // সৈয়দ সাইফুল ইসলাম নাহেদ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন