জেনে নিন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সহজ উপায়

প্রকাশিত: ৮:১২ অপরাহ্ণ, জুন ১৯, ২০২০

জেনে নিন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সহজ উপায়

হারানো বিজ্ঞপ্তি, নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, আইনগত বিজ্ঞপ্তি, নিলাম বিজ্ঞপ্তি, এফিডেভিট, শুভেচ্ছা অভিনন্দন সহ আপনার প্রতিষ্ঠানের যেকোন বিজ্ঞাপনের জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন, প্রচারে প্রসার প্রচারের জন্য আমরা, যোগাযোগের ঠিকানাঃ- সৈয়দ সাইফুল ইসলাম নাহেদ মোবাইলঃ ০১৭১২-০৪৫৩৯১

সিলেটের চাকরির খবর ডেস্ক:- ডায়াবেটিসের সমস্যায় ভুগছেন অসংখ্য মানুষ। এই রোগের হাত ধরে দেখা দিতে পারে আরও অনেক রোগ। রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যাওয়ার এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে মেনে চলতে হয় কিছু নিয়ম। কারণ এই শর্করার মাত্রা বেড়ে গেলে যেমন সমস্যা, অতিরিক্ত কমে গেলেও তেমনই সমস্যা। তাই একে নিয়ন্ত্রণে রাখা জরুরি।

জেনে নিন সেজন্য কোন কাজগুলো করতে হবে-

খাওয়ার আগে এবং দুই ঘণ্টা পরে পরীক্ষা করুন

এইভাবে পরীক্ষা করলে বুঝতে পারবেন যে আপনার ওষুধগুলো আসলে কাজ করছে কিনা। এটি আপনাকে বুঝতে সাহায্য করবে, খাবারের মাধ্যমে রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়েছে কি না। আপনার ডাক্তারের কাছ থেকে একটি সঠিক ডায়েট প্ল্যান নিন এবং আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা পরীক্ষা করার সঠিক সময় ও কতক্ষণ পরপর করবেন তা জেনে নিন।

লক্ষণগুলোর দিকে খেয়াল রাখুন

হঠাৎ একদিন রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে গেলে উদ্বিগ্ন হবেন না, তবে প্রতিদিন একইভাবে উচ্চ শর্করা দেখা গেলে দ্রুত চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলুন। ব্লাড সুগার বা রক্তে শর্করার মাত্রা সঠিক মাত্রায় রাখতে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলা ভীষণ জরুরি।

কিছু পরিবর্তন আনুন

যদি ব্লাড সুগার বেড়ে যায় তবে চেষ্টা করুন তা নিয়ন্ত্রণের। শরীরচর্চায় আরও মনোযোগী হোন, খাবারে কার্ব গ্রহণের পরিমাণ সীমাবদ্ধ করতে পারেন। তবে উদ্বিগ্ন হবেন না। হঠাৎ একবার ব্লাড সুগার বেড়ে যাওয়া বড় কোনো সমস্যা নয়।

মনোযোগ দিন

যদি আপনার ব্লাড সুগার বেড়ে যায় তবে আপনি কী খেয়েছিলেন তা ভেবে দেখুন। এমন কিছু থাকতে পারে যা হয়তো আপনি সাধারণত খেয়ে থাকেন না।

সুতরাং, পরের বার যখন আপনার গ্লুকোমাটার উচ্চ শর্করা দেখায়, মনে করে দেখুন, এর আগে কী খেয়েছিলেন। পরের বার সেসব খাবার এড়িয়ে চলুন।

নিয়মিত বিশ্রাম নিন

সব সময় খাবারই যে আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে তোলে, এমন নয়। কখনো কখনো খুব বেশি চাপ বা উদ্বেগও রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে।

স্ট্রেস খারাপ এবং এটি আমরা সবাই জানি। তাই স্ট্রেসমুক্ত থাকুন। অতিরিক্ত চাপ নেবেন না। ব্যস্ততার মতো বিশ্রামও সমান জরুরি।

সিলেটের চাকরির খবর / সৈয়দা তানিশা

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন